bd-university.com – a collective stupidity

Few days ago I have heard about them in Projanmo Forum that this site is going to rank Bangladeshi Universities. I did not find them worthy to visit. But today one of our teachers mailed me regarding this. here is what he wrote:

Please consider voting, however stupid the idea may sound and be indeed! Just prove that we’re also online watching what’s going on around.

So I thought to give them a sight and also voted without reading anything! I have also joined the stupidity and turned to a stupid too!

After the vote, I tried exploring the site and become astonished seeing there is nothing about these den of those stupids. There is no about us page, there is no disclaimer page. Just an terms page.

In the terms page they said some important things. Continue reading →

Looking back… (Part 1)

Today I sat in the last exam of my BBA (Hons) degree; that means my BBA is almost completed. Just waiting for the Viva though on 30th June, I have to face the Viva-voce. A milestone is achieved.

I may not participate in MBA in University of Rajshahi. I will try to admit somewhere in Dhaka or abroad.

I have admitted in Rajshahi University in 2003. From 15 March, 2003 our classes started. According to schedule I should have finished by March 2007. But yes session jam took more than 1 year of our lives. But still thanks Allah that the new batches are not cursed by this black session jam. We have fight most to eliminate the session jam. Lights did not shed us but our followers. We are happy for this though. Continue reading →

পুলক জাগানো অভিজ্ঞতা

গত রবিবার এক দারুন অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হলাম। আমাদের বিভাগের সংগঠন “পোর্টফোলিও” এর উদ্দ্যোগে আয়োজন করা হয় নৌকা ভ্রমনের। নৌকাতে করে আমরা যাব পদ্মার অপর পাড়ে। দুপুর পর্যন্ত ক্লাস শেষ করে ১ম বর্ষ থেকে এমবিএ পর্যন্ত প্রায় ৫০ জনের একটা বিশাল দল হাঁটা দিল পদ্মার পাড়ের দিকে। সেখান থেকেই নৌকায় উঠব। ফাঁকিবাজ আমি দল ছেড়ে আস্তে সরে গিয়ে রিকসা ধরে আগেই পদ্মার পাড়ে পৌঁছে যাই। কারণ খালি পেটে অতটা হাটার শক্তি ছিল না। ২.৩০টার দিকে ইঞ্জিন চালিত নৌকা চলতে শুরু করল। সে কি হই হুল্লুড়। মনে হচ্ছে নৌকাই ডুবে যাবে। এরপর নৌকাতেই শুরু হল খাওয়া দাওয়া। কিছুক্ষন চলল পানি নিয়ে একে অপরকে ভেজানোর খেলা। মাঝিদের সর্তক থাকার নির্দেশে কিছুটা নিস্তেজ হলাম আমরা। প্রায় ২০ মিনিট নৌকা চলার পর আমরা পৌঁছে গেলাম পদ্মা নদীর অপর প্রান্ত। নামগুলো মনে নেই। ছবিতে আছে।
নদীর পাড়ে উঠার পূর্বে পাড় দেখে টাইটানিকের বিশাল বরফের পাহাড়ের কথাই বারবার মনে হচ্ছিল। Continue reading →